তেলেনাপােতা আবিষ্কার MCQ (একাদশ শ্রেণি)


তেলেনাপােতা আবিষ্কার


'তেলেনাপােতা আবিষ্কার' করতে গেলে কখন বেরােতে হবে?

'তেলেনাপােতা আবিষ্কার' করতে গেলে বিকেলের পড়ন্ত রােদে বেরােতে হবে।


'তেলেনাপােতা আবিষ্কার' গল্পে তেলেনাপােতায় যেতে গেলে কোন্ ধরনের বাসে উঠতে হবে?

তেলেনাপােতায় যেতে গেলে জিনিসে মানুষে-ঠাসাঠাসি বাসে উঠতে হবে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে জঙ্গলের ভিতর থেকে ভেসে আসা শুতিবিস্ময়কর আওয়াজটি কেমন ছিল?

জঙ্গলের ভিতর থেকে ভেসে আসা শ্রুতিবিস্ময়কর আওয়াজটি ছিল নিংড়ে নিংড়ে বের করা অমানুষিক এক কান্নার মতাে।


'তেলেনাপােতা আবিষ্কার' গল্পে গােরুর গাড়িটিকে দেখে তা কোথা থেকে বেরিয়ে এসেছে বলে মনে হবে?

গােরুর গাড়িটিকে দেখে মনে হবে তা পাতালের কোনাে বামনের দেশ থেকে বেরিয়ে এসেছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে তেলেনাপােতার ভৌগােলিক অবস্থান কোথায়?

তেলেনাপােতা মহানগরী থেকে মাত্র তিরিশ মাইল দূরে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে অট্টালিকায় কথকরা যে কটু গন্থ পেয়েছিলেন তা কীসের ছিল?

অট্টালিকায় কথকরা যে কটু গন্ধ পেয়েছিলেন তা ছিল পুকুরের পানা পচার গন্ধ।


ঘরের অধিকার নিয়ে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কথকের সঙ্গে কাদের ঝামেলা হতে পারে?

ঘরের অধিকার নিয়ে গল্পের কথকের সঙ্গে দু-তিনটে চামচিকের ঝামেলা হতে পারে।


বাংলা- একাদশ শ্রেণি


কর্তার ভূত MCQ (একাদশ শ্রেণি)


 ডাকাতের মা MCQ (একাদশ শ্রেণি)


সুয়েজখালে : হাঙ্গর শিকার  MCQ (একাদশ শ্রেণি)


গালিলিও MCQ (একাদশ শ্রেণি)


নীলধ্বজের প্রতি জনা MCQ (একাদশ শ্রেণি)


বাড়ির কাছে আরশীনগর MCQ (একাদশ শ্রেণি)


দ্বীপান্তরের বন্দিনী MCQ (একাদশ শ্রেণি)


নুন MCQ (একাদশ শ্রেণি)


বিশাল ডানাওয়ালা এক থুরথুরে বুড়াে MCQ (একাদশ শ্রেণি)


'শিক্ষার সার্কাস' MCQ (একাদশ শ্রেণি)


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যামিনীকে নিরঞ্জন কেন বিয়ে করে উদ্ধার করেনি বলে মণিবাবুর অভিমত?

যামিনী ঘুঁটে কুড়নির মেয়ে বলে নিরঞ্জন তাকে বিয়ে করে উদ্ধার করবে না বলে মণিবাবুর অভিমত।


'তেলেনাপােতা আবিষ্কার' গল্পে তেলেনাপােতায় সকালে জেগে উঠে কথক কী দেখার কথা বলেছেন?

তেলেনাপােতায় সকালে জেগে উঠে কথক পাখির কলরবে চারিদিক ভরে ওঠার কথা বলেছেন।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে তেলেনাপােতায় পুকুরঘাটে মেয়েটি কী করতে এসেছিল?

তেলেনাপােতায় পুকুরঘাটে মেয়েটি ঝকঝকে ঘড়ায় জল ভরতে এসেছিল।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে তেলেনাপাতায় বন্ধুদের কী কর্ণগােচর হয়েছিল?

তেলেনাপােতায় বন্ধুদের কর্ণগােচর হয়েছিল গল্পকথকের নিষ্ফল মৎস্যশিকারের বৃত্তান্ত।


“কেন তুই আমার কাছে লুকোচ্ছিস?"-কী লুকোনাের কথা বলা হয়েছে?

যামিনীকে বিয়ে করার আশ্বাস দিয়ে গিয়েছিল যে নিরঞ্জন তার কাল্পনিক আগমনের কথা বলা হয়েছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে নিরঞ্জন যামিনীর মাকে কী বলেছিল?

নিরঞ্জন যামিনীর মাকে বলেছিল বিদেশের চাকরি থেকে ফিরে এসে সে যামিনীকে বিয়ে করবে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যামিনীর মা নিরঞ্জন ভেবে কথকের কাছে কী ‘শেষকথা’ দাবি করেছিলেন?

যামিনীর মা নিরঞ্জন ভেবে কথকের কাছে শেষ কথা হিসেবে দাবি করেন যেন তিনি যামিনীকে গ্রহণ করেন।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যামিনীকে উদ্দেশ করে কথকের শেষ মন্তব্য কী ছিল?

যামিনীকে উদ্দেশ করে কথকের শেষ মন্তব্য ছিল তেলেনাপােতার মাছ তাকে বারবার ফাঁকি দিতে পারবে না।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কখন বন্ধুদের সঙ্গে ক্ষণে ক্ষণে অনিচ্ছাকৃত সংঘর্ষ বাধবে গল্পকথকের?

গােরুর গাড়িতে করে তেলেনাপােতায় যাবার পথে বন্ধুদের সঙ্গে ক্ষণে ক্ষণে অনিচ্ছাকৃত সংঘর্ষ বাধবে গল্পকথকের।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে তেলেনাপােতা যাওয়ার সময় কথকরা কখন বাসে উঠেছিলেন?

তেলেনাপােতা যাওয়ার সময় কথকরা বিকেলের পড়ন্ত রােদে বাসে উঠেছিলেন।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে গল্পকথকদের নামিয়ে দেওয়ার পর বাসটি কীভাবে চলে গিয়েছিল?

গল্পকথকদের নামিয়ে দেওয়ার পর বাসটি সেতুর উপর দিয়ে ঘর্ঘর শব্দে চলে গিয়েছিল।


বাসস্ট্যান্ডে নালার পাশে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কথকরা কোথা থেকে একটি শ্রুতিবিস্ময়কর আওয়াজ পাবেন?

বাসস্ট্যান্ডে নালার পাশে দাঁড়িয়ে থাকতে থাকতে কথকরা কাদাজলের নালা যেখানে জঙ্গলের মধ্যে হারিয়ে গিয়েছিল, সেখান থেকে একটি শ্রুতিবিস্ময়কর আওয়াজ শুনতে পাবেন।


জঙ্গলের ভিতর থেকে আসা ‘অপরূপ শ্রুতিবিস্ময়কর আওয়াজ শুনে 'তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কথকের কী মনে হয়েছিল?

জঙ্গলের ভিতর থেকে আসা অপরূপ শ্রুতি বিস্ময়কর আওয়াজ শুনে কথকের মনে হয়েছিল- জঙ্গল থেকে কে যেন একটা আধুনিক কান্না নিংড়ে নিংড়ে বার করছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে তেলেনাপােতায় নিয়ে যাবার জন্য আসা গােরুর গাড়িটি এবং তার গােরু দুটি দেখে কথকের কী মনে হয়েছিল?

কথকদের তেলেনাপােতায় নিয়ে যাবার জন্য আসা গােরুর গাড়িটি ও তার গােরু দুটি দেখে কথকের মনে হয়েছিল পাতালের কোনাে বামনের দেশ থেকে যেন তারা উঠে এসেছে।


চলমান গােরুর গাড়ির দু-পাশে ভাঙা মন্দির এবং পুরােনাে অট্টালিকার ধ্বংসাবশেষ দেখে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কথকের কী মনে হয়েছিল?

চলমান গােরুর গাড়ির দু-পাশে ভাঙা মন্দির এবং পুরােনাে অট্টালিকরা ধ্বংসাবশেষ দেখে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কথকের মনে হয়েছিল বিশাল মৌন সব প্রহরী যেন গাড়ির দু-পাশ থেকে ধীরে সরে যাচ্ছে।


"আপনাকে নিরস্ত করবার চেষ্টা করবে।”—কোন্ ব্যাপারে নিরস্ত করবার কথা বলা হয়েছে?

ভাঙা সিঁড়ি দিয়ে ছাদে ওঠার ব্যাপারে নিরস্ত করবার কথা বলা হয়েছে।


“তার ক্ষীণ, দীর্ঘ, অপুষ্ট শরীর দেখলে মনে হবে ..”—কী মনে হবে কথকের?

তার বলতে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যামিনীর কথা বলা হয়েছে। কৈশাের অতিক্রম করে যৌবনে উত্তীর্ণ হওয়া তার যেন স্থগিত হয়ে গেছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কত বছর আগে নিরঞ্জন যামিনীকে বিয়ে করবে বলে কথা দিয়েছিল?

চার বছর আগে নিরঞ্জন যামিনীর মাকে বলেছিল বিদেশের চাকরি থেকে দেশে ফিরে এসেই সে যামিনীকে বিয়ে করবে।


"কিন্তু সে কথা ওঁকে বলে কে?" সে কথা বলতে কোন্ কথা বলা হয়েছে?

উদ্ধৃতাংশে ‘সে কথা' বলতে বিদেশে না গিয়ে নিরঞ্জনের ইতিমধ্যে অন্যত্র বিয়ে করার কথা বলা হয়েছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যে ঘরে যামিনীর মা শায়িত ছিলেন, সেই ঘরটি দেখে গল্পকথকের কী মনে হয়েছিল?

প্রেমেন্দ্র মিত্রের লেখা তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যে ঘরে যামিনীর মা শায়িত ছিলেন, সেই ঘরটি দেখে গল্পকথকের মনে হয়েছিল মাটির তলাকার সুড়ঙ্গেই যেন তিনি প্রবেশ করেছেন।


তেলেনাপােতা যাবার পূর্বে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কথকের কী ধরনের মাছ ধরার অভিজ্ঞতা ছিল?

তেলেনাপােতা যাবার পূর্বে কথকের পুঁটিমাছ বা যে-কোনাে ছােটোমাছ ধরার অভিজ্ঞতা ছিল।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে বাসটি কোথায় অদৃশ্য হয়ে যাবে?

তেলেনাপােতা যাবার পথে একধারে পথের বাঁকে বাসটি অদৃশ্য হয়ে যাবে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে জলা থেকে কী উঠছে বলে মনে হবে?

জলা থেকে উঠছে একটু ক্রুর কুণ্ডলিত জলীয় বাষ্প।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে নালাটি কোথায় হারিয়ে গিয়েছিল?

নালাটি দুধারে বাঁশঝাড় ও বড়াে বড়াে ঝাঁকড়া গাছের মধ্যে হারিয়ে গিয়েছিল।


“সে-শব্দে আপনারা কিন্তু প্রতীক্ষায় চঞ্চল হয়ে উঠবেন?"-কোন শব্দে?

বােবা জঙ্গল থেকে এক অমানুষিক কান্নার শব্দে কথকরা প্রতীক্ষায় চঞ্চল হয়ে উঠবেন।


"প্রথমে একটি ক্ষীণ আলাে দুলতে দেখা যাবে”—ক্ষীণ আলােটি কীসের?

ক্ষীণ আলােটি ছিল গােরুর গাড়িতে ঝুলতে থাকা হ্যারিকেনের আলাে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে গােরুর গাড়িতে কী সমস্যা হয়েছিল?

ছােটো ছইটির নীচে কীভাবে তিনজনের হাত, পা, মাথা থাকবে সেই সমস্যা গােরুর গাড়িতে দেখা দিয়েছিল।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে গােরুর গাড়িতে চেপে বিস্মিত হয়ে কী দেখবেন কথক?

গােরুর গাড়িতে চেপে কথক বিস্মিত হয়ে দেখবেন, ঘন অন্ধকার অরণ্য যেন সংকীর্ণ একটু সুড়ঙ্গের মতাে পথ সামনে একটু একটু করে খুলবে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে ছইয়ের ভিতর দিয়ে কী দেখা যাবে?

গােরুর গাড়ির ছইয়ের ভিতর দিয়ে আকাশের তারা দেখা যাবে।


'তেলেনাপােতা আবিষ্কার' গল্পে গাড়ির গাড়ে়ায়ান যাত্রীদের আশ্বস্ত করবার জন্য কী বলেছিল?

গাড়ির গাড়ােয়ান যাত্রীদের আশ্বস্ত করবার জন্য বলে যে, নিতান্ত ক্ষুধার্ত চিতাবাঘ না হলে সেই আওয়াজই তাকে দূরে রাখবার পক্ষে যথেষ্ট।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে যামিনীর মায়ের অস্থির হয়ে ওঠার কারণ কী ছিল?

কথকদের আগমনে তিনি ভেবেছেন কথা দিয়ে যাওয়া নিরঞ্জন এসেছে, যে তার মেয়েকে এই প্রেতপুরী থেকে উদ্ধার করে নিয়ে যাবে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পটির লেখক কে?

প্রেমেন্দ্র মিত্র।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পটি কোন্ গ্রন্থ থেকে সংকলিত?

কুড়িয়ে ছড়িয়ে (১৯৪৬)।


কী বারে যােগাযােগ ঘটলে তেলেনাপােতা আবিষ্কার করা যায়?

শনি ও মঙ্গলবার, সম্ভবত মঙ্গলবারই।


"আর যদি কেউ এসে ফুসলানি দেয়।”—গল্পকথককে কী ফুসলানি দেওয়া হয়েছিল?

তেলেনাপােতার দিঘিতে ইতিপূর্বে কেউ কখনও বড়শি দিয়ে মাছ ধরে নি বলে সেখানকার মৎস্যকুল বড়শিবিদ্ধ হওয়ার জন্য ব্যগ্র হয়ে রয়েছে।


গল্পকথক ইতিপূর্বে কোন্ মাছ ধরেছিলেন?

কয়েকটা পুঁটি মাছ।


গল্পকথকদের কতক্ষণ বাসে কাটাতে হয়েছিল?

ঘণ্টা দুয়েক।


“একটা বাসে গিয়ে আপনাকে উঠতে হবে।” তেলেনাপােতা যাওয়ার বাসযাত্রা কেমন ছিল?

গল্পকথক দু-ঘণ্টার বাসযাত্রায় গরমের মধ্যে প্রচণ্ড ভিড়ে মানুষের গুঁতাে খেয়ে, ঘেমে-নেয়ে উঠেছিলেন।


“একটা বাসে গিয়ে আপনাকে উঠতে হবে।"- গল্পকথকদের নামিয়ে দিয়ে বাসটি কীভাবে অন্তর্হিত হয়?

গল্পকথকদের নামিয়ে দেওয়ার পর জলাজমির ওপরের একটি সাঁকোর ওপর দিয়ে বিচিত্র ঘর্ঘর শব্দে চলে গিয়ে পথের ওধারে অন্তর্হিত হয়।


“একটা বাসে গিয়ে আপনাকে উঠতে হবে।” -বাস থেকে নামার পর গল্পকথকরা কীরকম আবহাওয়া টের পেলেন?

একটা স্যাঁতসেঁতে ভিজে ভ্যাপসা আবহাওয়া।


বাস থেকে নামার পর তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর গল্পকথকদের কোথায় দাঁড়াতে হয়েছিল?

বাসরাস্তা থেকে নেমে পাশের জলার কাছে।


বাস থেকে নেমে জায়গাটার স্যাতসেঁতে ভিজে ভ্যাপসা আবহাওয়া দেখে তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর গল্পকথকের কী মনে হয়েছিল?

গল্পকথকের মনে হয়েছিল সেতুর নীচের জলা থেকে কুণ্ডলী পাকানাে একটা ক্রুর, জলীয় অভিশাপ যেন ধীরে ধীরে একটা অদৃশ্য ফণা তুলে উঠে আসছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর অভিযানে গল্পকথকের কজন সঙ্গী ছিল?

দুজন।


“সে-শব্দে আপনারা কিন্তু প্রতীক্ষায় চঞ্চল হয়ে উঠবেন।" -আপনারা বলতে লেখক কাদের বুঝিয়েছেন?

আপনারা বলতে লেখক তেলেনাপােতা আবিষ্কারে আগ্রহী পাঠক এবং তার দুই বন্ধুকে বুঝিয়েছেন।


“প্রতীক্ষাও আপনাদের ব্যর্থ হবে না”—কীসের জন্য প্রতীক্ষা?

বাসস্ট্যান্ড থেকে তেলেনাপােতার নির্দিষ্ট বাড়িতে নিতে যাবার যানবাহনের জন্য প্রতীক্ষা।


".. সে সমস্যার মীমাংসা করবেন।"- কোন্ সমস্যার?

গােরুর গাড়িটির অত্যল্প জায়গায় গল্পকথকদের তিনজনের তিনটি মাথা এবং তিনজোড়া করে হাত এবং পা কীভাবে প্রতিষ্ঠিত করবেন, সেই সমস্যারই মীমাংসা করবেন তারা।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর গল্পকথকদের গােরুর গাড়িটি কীভাবে এগিয়ে চলছিল ?

গােরুর গাড়িটি পায়ে পায়ে পথ করে নিয়ে সেই ঘনান্ধকার পথে ধীর স্থির গতিতে অবিচলিতভাবে এগিয়ে চলেছিল।


"বন্ধুদের সঙ্গে ক্ষীণ ক্ষণে অনিচ্ছাকৃত সংঘর্ষ বাধবে।”— কোথায়?

বাসস্ট্যান্ড থেকে তেলেনাপােতা যাওয়ার পথে গােরুর গাড়িতে।


"হঠাৎ এক সময় উৎকট এক বাদ্য-ঝঞ্জনায় জেগে উঠে দেখবেন,"- কী দেখবেন?

ছই -এর মধ্যে বসে থাকা-অবস্থাতেই আকাশের তারা দেখা যাচ্ছে এবং গােরুর গাড়ির চালক মাঝে মাঝেই উদ্দীপিত হয়ে ক্যানেস্তারা বাজাচ্ছে।


“গাড়ির গাড়ােয়ান থেকে থেকে সােৎসাহে একটি ক্যানেস্তারা বাজাচ্ছে।"- গাড়ির গাড়ােয়ান ক্যানেস্তারা বাজায় কেন?

গাড়ির গাড়ােয়ান চিতাবাঘ তাড়াতেই ক্যানেস্তারা বাজার।


‘কৃয়পক্ষের বিলম্বিত, ক্ষয়িত চাদ'-এর 'স্তিমিত আলােয়' কী দেখেছিলেন 'তেলেনাপােতা আবিষ্কার'-এর গল্পকথক?

চলমান গােরুর গাড়ির দু-পাশে পুরােনাে মন্দির এবং প্রাসাদের বিভিন্ন ভগ্নাংশ—যেমন স্তম্ভ, দেউরির খিলান ইত্যাদি-মহাকালের সাক্ষী হবার বৃথা আশা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।


"একটা কটু গন্ধ অনেক্ষণ ধরেই আপনাদের অভ্যর্থনা করছে।"- কটু গন্ধের কারণ কী?

পাশের পুকুরের পচা কচুরিপানাই সেই কটু গন্ধের কারণ।


যে জীর্ণ অট্টালিকায় উঠেছিলেন 'তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর গল্পকথকরা, তার বর্ণনা দাও।

পানাপুকুরের পাশে থাকা সেই প্রসাদটি তার ভাঙা ছাদ, ভেঙে-পড়া দেওয়াল এবং দৃষ্টিহীনের অক্ষিকোটরের মতাে কপাটহীন জানলা নিয়ে চাদের আলােকে প্রতিহত করে চলেছে দুর্গের পাঁচিলের মতাে।


গােরুর গাড়ি থেকে নামার পর তেলেনাপোতা আবিষ্কার- এর গল্পকথকরা কেমন গন্ধ পেয়েছিলেন?

পুকুরের কচুরিপানা-পচার কটু গন্ধ।


জীর্ণ অট্টালিকার যে ঘরে লেখকরা রাত্রিবাস করবেন বলে ঠিক করেছিলেন, সেই ঘরটিতে থাকার ব্যাপারে কে কীভাবে তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর গল্পকথকদের সাহায্য করেছিলেন?

গােরুর গাড়ির গাড়ােয়ান একটি ভাঙা লণ্ঠন জ্বালিয়ে নিয়ে এসে ঘরে এনে বসিয়ে দেয় এবং আরও আনে এক কলশি জল।


“ঘরের অধিষ্ঠাত্রী আত্মা যে তাতে ক্ষুদ্ধ”—কোন্ ঘরের কথা বলা হয়েছে?

গল্পকথকরা তেলেনাপােতায় এসে জীর্ণ এক অট্টালিকার অপেক্ষাকৃত বাসযােগ্য যে ঘরটিতে বাস করা স্থির করেছিলেন, সেই ঘরের কথা বলা হয়েছে।


“ঘরের অধিষ্ঠাত্রী আত্মা যে তাতে ক্ষুন্ধ”—ক্ষুদ্ধ হওয়ার কারণ কী?

গল্পকথকরা ঘরটিতে প্রবেশ করার আগে ঘরটির ঝুলকালি, ধুলাে এবং আবর্জনা ইতিপূর্বে কেউ পরিষ্কার করার ব্যর্থ চেষ্টা করে গেছে বলে।


“ঘরের অধিষ্ঠাত্রী আত্মা যে তাতে ক্ষুদ্ধ”—এই ক্ষোভ কীভাবে প্রমাণিত হয়েছে?

একটা অপরিস্ফুট, ভ্যাপসা গন্ধের দ্বারাই তা প্রমাণিত হয়েছে যে সে ঘরের অধিষ্ঠাত্রী আত্মা ক্ষুধ হয়েছেন।


"একটা অস্পষ্ট ভ্যাপসা গন্ধে তার প্রমাণ পাবেন।"- কীসের প্রমাণ?

গল্পকথকরা ঘরটিতে প্রবেশ করার আগে ঘরটির ঝুলকালি, ধুলাে এবং আবর্জনা ইতিপূর্বে কেউ পরিষ্কার করার ব্যর্থ চেষ্টা করে গেছিল বলে সে-ঘরের অধিষ্ঠাত্রী আত্মা যে তাতে ক্ষুধ হয়েছেন, সেই ক্ষোভের প্রমাণের কথাই এখানে বলা হয়েছে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার-এর গল্পকথকদের বাস করা ঘরটির রুষ্ট আত্মার অভিশাপ কীভাবে বর্ষিত হয়েছিল বসবাসকারীদের ওপর?

একটু-আধটু হাঁটাচলা করলেই সেই ঘরটির ছাদ ও দেওয়াল থেকে ভাঙা প্লাস্টার গল্পকথকদের দেহের ওপর বর্ষিত হচ্ছিল।


“ঘরের অধিকার নিয়ে আপনাদের সঙ্গে সমস্ত রাত বিবাদ করবে।”—কে?

দু-তিনটি চামচিকা।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথকের ‘নিদ্রাবিলাসী’ বন্ধুটি ঘরে প্রবেশ করে কী করলেন?

ঘরে শতরঞ্চি পাতার পরই 'নিদ্রাবিলাসী' বন্ধুটি সেখানে নিজেকে সঁপে দিয়ে নাক ডাকতে শুরু করে দেন।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথকের পান-রসিক বন্ধুটি ঘরে প্রবেশ করে কী করলেন?

ঘরে শতরঞি পাতার পরই পান রসিক বন্ধুটি সেখানে পানপাত্রে নিজেকে সম্পূর্ণ নিয়ােজিত করে দেন।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের রাত্রে কখন মশার দল গল্পকথককে ছেঁকে ধরে?

বেশি রাতে ভাঙা লণ্ঠনের চিমনি ক্রমে ক্রমে কালাে কালিতে ভরে গিয়ে একসময় যখন লণ্ঠনটি নিভে যায়, তখনই মশার দল গল্পকথককে ছেঁকে ধরে।


অ্যানােফিলিস মশাকে কীভাবে শনাক্ত করেছিলেন তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক?

দেওয়ালে বা গায়ে মশার বসার বিশিষ্ট ভঙ্গি দেখে।


“আপনার দুই বন্ধু তখন দুই কারণে অচেতন।"- দুই কারণ কী কী?

এক বন্ধু তার নিদ্রাকাতর স্বভাবের জন্য এবং অন্য বন্ধু মদ্যপানের কারণে ঘুমে অচেতন ছিল।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক রাত্রে টর্চ হাতে ছাদে উঠেছিলেন কী থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার জন্য?

মশার কামড় এবং গুমােট গরম থেকে।


যামিনীর মা কার সঙ্গে যামিনীর বিয়ের সম্বন্ধ ঠিক করেছিলেন?

যামিনীর মা নিরঞ্জনের সঙ্গে যামিনীর বিয়ের সম্বন্ধ ঠিক করেছিলেন।


"..আপনাকে নিরস্ত করবার চেষ্টা করবে।”—কে নিরস্ত করার চেষ্ঠা করবে?

প্রতি মুহূর্তে ইট বা টালি গায়ের ওপর খসে পড়ে ধরাশায়ী হওয়ার বিপদ।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক মাঝরাত্রে ছাদে গিয়ে তার কী ভগ্নদশা প্রত্যক্ষ করলেন?

গল্পকথক দেখেন ছাদের আলিসা অনেক জায়গাতেই ভাঙা এবং সেই আলিসা ও ছাদের মাঝখানের ফাটলগুলিতে এমনভাবে সব গাছ গজিয়েছে যে, তাদের চক্রান্তমূলক শিকড় ভেতরে ভেতরে জীর্ণ প্রাসাদটিকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে চলেছে।


“তা যেন আপনি টের পাবেন।"- কী টের পাওয়ার কথা বলা হয়েছে?

জীর্ণ প্রাসাদের ভাঙা ছাদে নিশীথে একাকী দাঁড়িয়ে গল্পকথক যেন টের পাবেন যে, মরণ-নিদ্রায়-আবিল সেই ছলনাপুরীর কোনাে গােপন কক্ষে যেন কবরারুদ্ধা রাজকুমারী সােনার কাঠি ও রুপাের কাঠি পাশে নিয়ে যুগ- যুগান্তরের গভীর নিদ্রাচ্ছন্নতায় অচৈতন্য হয়ে আছেন।


“... একটি আলাের ক্ষীণ রেখা আপনি হয়তাে দেখতে পাবেন।" -কোথায়?

গল্পকথকদের বাস-করা জীর্ণ প্রাসাদেরই পাশের সরু রাস্তার ওপারের যে প্রাসাদটিকে ছাদ থেকে দেখে ইতিপূর্বে তাঁর ভগ্নস্তূপ বলে মনে হয়েছিল, তারই একটি জানলায় ক্ষীণ আলােক-রেখা দেখতে পাওয়া যায়।


“খানিক বাদে মনে হবে সবই বুঝি আপনার চোখের ভ্ৰম।"- কার কথা বলা হয়েছে?

গল্পকথক জীর্ণ প্রাসাদের ছাদে দাঁড়িয়ে পার্শ্ববর্তী ভগ্নপ্রাসাদে একটি ক্ষীণ আলােকরেখা দেখেছিলেন এবং তারার সেই আলােকরেখা আড়াল করে একটি রহস্যময় অশরীরী মূর্তিকে সেখানে দাঁড়াতেও দেখেছিলেন—এই সম্মিলিত দৃশ্যের কথাই এখানে বলা হয়েছে।


"যখন জেগে উঠবেন তখন অবাক হয়ে দেখবেন...”—কী দেখবেন?

সেই রাত্রিপুরীতেও সকাল হয় এবং পাখির কলকাকলিতে চারদিক মুখরিত হয়ে ওঠে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক যখন মাছ ধরছিলেন তখন মাছরাঙা পাখি কী করছিল?

পুকুরটির অন্য পাড়ে নুয়ে-পড়া একটি বাঁশের আগায় বসে থাকা মাছরাঙাটি তার রঙিন দেহ নিয়ে মাঝে মাঝেই পুকুরের জলে ঝাঁপিয়ে পড়ছিল এবং ঠোঁটে মাছ নিয়ে সার্থকতার আনন্দে আবার বাঁশের মাথায় ফিরে যাচ্ছিল।


"আপনার আসল উদ্দেশ্য আপনি নিশ্চয় বিস্মৃত হবেন না।”—উদ্দেশ্যটা কী?

মাছ ধরা ছিল গল্পকথকের আসল উদ্দেশ্য।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক যখন মাছ ধরছিলেন, তখন সাপটা কী করছিল?

একটি মােটা, লম্বা সাপ গল্পকথককে চমকে দিয়ে ভাঙা ঘাটের কোনাে ফাটল থেকে বেরিয়ে ধীর-স্থির ভাবে সাঁতরে পুকুরের ওপারে গিয়ে উঠেছিল।


মাছ ধরার সময় কে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথককে কীভাবে বিদ্রুপ করছিল?

পুকুরঘাটে বসে গল্পকথক যখন বড়শিতে মাছ ধরছিলেন তখন অন্যপাড়ে নুয়ে-পড়া-একটি-বাঁশের-আগায় বসে থাকা একটি মাছরাঙা পাখি তার রঙিন দেহ নিয়ে মাঝে মাঝেই পুকুরের জলে ঝাঁপিয়ে পড়ছিল এবং সার্থকতার আনন্দে আবার বাঁশের আগায় ফিরে গিয়ে যেন দুর্বোধ্য ভাষায় তাঁকে বিদ্রুপ করছিল।


মাছ ধরার সময় কে তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথককে কীভাবে সন্ত্রস্ত করেছিল?

একটা মােটা, লম্বা সাপ গল্পকথককে সন্ত্রস্ত করে দিয়ে ভাঙা ঘাটের কোনাে এক ফাটল থেকে বের হয়ে ধীর-স্থির ভাবে সাঁতরে পুকুরের ওপারে গিয়ে উঠেছিল।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক যখন মাছ ধরছিলেন, তখন দুটো ফড়িং কী করছিল?

দুটো ফড়িং যেন প্রতিযােগিতা করে তাদের পাতলা কাচের মতাে পাখা নেড়ে গল্পকথকের বড়শির ফাতনার ওপর বসার চেষ্টা করছিল।


বড়শিতে মাছ ধরতে বসে মাঝে মাঝেই তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথক আনমনা হচ্ছিলেন কেন?

থেকে থেকে ঘুঘুপাখির বিষন্ন ডাকে।


“তারপর হঠাৎ জলের শব্দে আপনার চমক ভাঙবে।”— চমক ভেঙে কী দেখবেন?

চমক ভেঙে গল্পকথক দেখলেন যে, স্থির জল কেঁপে উঠেছে এবং তার বড়শির ফাতনা তার ফলে ধীরে ধীরে দুলছে।


“ঘাড় ফিরিয়ে দেখবেন...”—কী দেখবেন?

ঘাটে দাঁড়িয়ে একটি মেয়ে পুকুরের পানা সরিয়ে পিতলের একটি চকচকে কলশিতে জল ভরছে।


কলশিতে জল নিয়ে ফিরে যাবার সময় তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের যামিনী গল্পকথককে কী বলেছিল?

মেয়েটি গল্পকথককে হাত গুটিয়ে বসে থাকার কারণ জিজ্ঞাসা করে এবং তাঁকে বড়শিতে টান দিতে বলে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথকের মাছ-ধরার ব্যর্থতার কাহিনি তার দুই বন্ধু কার কাছ থেকে শুনেছিলেন?

প্রত্যক্ষদর্শী যামিনীর কাছ থেকে।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের গল্পকথকের পান রসিক বন্ধুর নাম কী ছিল?

মণি।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের যামিনী লেখকের পান- রসিক বন্ধু মণিদার কে হন?

জ্ঞাতিবােন।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের যামিনীদের বাড়িতে দুপুরের খাওয়া-দাওয়ার পর গল্পকথকরা কী করছিলেন?

বিশ্রাম করছিলেন।


"সে নিশ্চয় এসেছে।" -সে বলতে বক্তা কাকে নির্দেশ করেছে?

নিরঞ্জনকে নির্দেশ করেছেন যামিনীর মা।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের যামিনীর মা অন্ধ হয়ে যাওয়ার পর কেমন হয়ে গেছিলেন?

তিনি এমন ধৈর্যহীন হয়ে গেছিলেন যে, কোনাে কথা বুঝতে চাইতেন না, মাঝে মাঝেই রেগে গিয়ে মাথা খুঁড়ে এমন কাণ্ড বাঁধাতেন যে, তখন তার প্রাণ বাঁচানাে মুশকিল হয়ে পড়ত।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পের নিরঞ্জন কে ছিল?

যামিনীর মায়ের দূর-সম্পর্কের এক বােনপাে ছিল নিরঞ্জন, যার সঙ্গে যামিনীর বিয়ের সম্বন্ধ করছিলেন যামিনীর মা।


তেলেনাপােতা আবিষ্কার গল্পে কতদিন আগে শেষবার যামিনীদের বাড়ি এসেছিল নিরঞ্জন?

চার বছর আগে নিরঞ্জন যামিনীদের বাড়ি এসেছিল।


"বছর চারেক আগেও সে-ছােকরা এসে ওঁকে বলে গেছল...।”—সে-ছােকরা কে? কাকে বলেছিল ?

সে-ছােকরা হল নিরঞ্জন। যামিনীর মাকে বলেছিল।


"বছর চারেক আগেও সে-ছােকরা এসে ওঁকে বলে গেছল...।”—কী বলে গিয়েছিল?

চার বছর আগে এসে নিরঞ্জন যামিনীর মাকে বলে গিয়েছিল যে, বিদেশের চাকরি থেকে ফিরে এসে তার মেয়ে যামিনীকে সে বিয়ে করবে।


“সেই থেকে বুড়ি এই অজগর পুরীর ভেতর বসে সেই আশায় দিন গুনছে।”- বুড়ি কে?

বুড়ি হলেন যামিনীর মা।


"সেই থেকে....দিন গুনছে।"- কবে থেকে?

চার বছর আগে যেদিন নিরঞ্জন যামিনীদের বাড়ি এসে তার মাকে বলে গিয়েছিল যে, বিদেশের চাকরি থেকে ফিরে এসে যামিনীকে সে বিয়ে করবে, সেই দিন থেকেই বৃদ্ধা আশায় দিন গুনছিলেন।


"কিন্তু সে-কথা ওঁকে বলে কে?”—কেন সে কথা বলে না কেউ ‘কে’?

যামিনী যার বাগদত্তা, সেই নিরঞ্জনের বিয়ে-থা করার কথা তার মাকে বললে, তিনি বিশ্বাসই করবেন না। আর যদি বিশ্বাস করেন, তবে শােকে-দুঃখে তখনই দম আটকে মারা যাবেন তিনি। তাই কথাটা কেউ তাকে বলে না।


দোতলায় যে ঘরটিতে যামিনীর মা শায়িত ছিলেন, সেই ঘরটি দেখে গল্পকথকের কী মনে হয়েছিল ?

মনে হয়েছিল যে, ঘরটি ওপরের নয়, মাটির তলার সুড়ঙ্গেই বুঝি তার অবস্থান।


"আমি জানতাম তুই না এসে পারবি না বাবা।”—কে কাকে বলেছে?

নিরঞ্জন মনে করে গল্পকথককে এ কথা বলেছেন যামিনীর মা।


তেলেনাপােতা থেকে ফেরার দিন গােরুর গাড়িতে উঠে- বসা গল্পকথককে যামিনী কী বলেছিল?

গল্পকথকের ছিপটিপ সব যে পড়ে রইল—সে কথাই বলেছিল।


"সে-সব কথা ভালাে-করে আপনার কানে যাবে না।-" কোন্ সব কথা?

একশাে বা দেড়শাে বছর আগে ম্যালেরিয়ার মড়কই তেলেনাপােতাকে যে গতিশীল ও জীবন্ত জগৎ থেকে বিচ্ছিন্ন এক দ্বীপে পরিণত করেছিল, সেইসব কথাই গল্পকথকের দুই বন্ধু ফেরার সময় গােরুর গাড়িতে বসে আলােচনা করছিলেন। তার কথাই বলা হয়েছে।


"আপনি শুধু নিজের হৃৎস্পন্দনে একটি কথাই বার বার ধ্বনিত হচ্ছে শুনবেন,”—কী কথা?

'ফিরে আসব, ফিরে আসব।'- এই কথা।


কলকাতা মহানগরের আলােকোজ্জ্বল রাজপথে এসে পৌছানাের পর তেলেনাপােতার স্মৃতি গল্পকথকের কাছে কেমন ছিল?

দূরবর্তী অথচ অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ একটি তারার মতাে।


“মনের আকাশে একটু করে কুয়াশা জমছে কিনা আপনি টের পাবেন না।মনের আকাশে কার ওপর কুয়াশা জমার কথা এখানে বলা হয়েছে?

তেলেনাপােতার স্মৃতির ওপর।


যেদিন গল্পকথক তেলেনাপােতায় ফিরে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হলেন, সেদিনই কী হল?

মাথার যন্ত্রণা এবং শীতের কাপুনি উপসর্গ নিয়ে ম্যালেরিয়া আক্রান্ত হয়ে গল্পকথক লেপ-তােষক মুড়ি দিয়ে বিছানায় শুয়ে পড়তে বাধ্য হলেন।


বহুদিন পর অসুখ-থেকে-সেরে-ওঠা গল্পকথক অত্যন্ত দুর্বল দেহ নিয়ে কাপা পায়ে বাড়ির বাইরের আলাে বাতাসে যখন এসে বললেন, তখন তিনি কী বুঝতে পারলেন?

বুঝতে পারলেন যে, ইতিমধ্যেই তার দেহ-মনে নিজের অজান্তেই অনেক ধােয়া-মােছা হয়ে গেছে।


থার্মোমিটারে পারা কত ডিগ্রি জ্বর জানান দিয়েছিল?

একশাে পাঁচ ডিগ্রি।


“ধরা গলায় আপনি তখন শুধু বলতে পারবেন”—কাকে কী বলতে পারবেন?

ধরা গলায় গল্পের কথক নায়ক চরিত্র যামিনীর মা-কে উদ্দেশ্য করে বলবেন যে, যামিনীকে গ্রহণের বিষয়ে তিনি কথা দিচ্ছেন।


“যামিনীকে নিয়ে তুই সুখী হবি বাবা।"- বক্তার এই মন্তব্যের কারণ কী?

যামিনীর অসাধারণ সহ্যক্ষমতা, পুরুষহীন গ্রামে দায়িত্ব নিয়ে সব সামলানাে ইত্যাদি কারণেই তার মা কথককে যামিনীকে নিয়ে সুখী হবার কথা বলেছে।


"যামিনী মুখ ফিরিয়ে নেবে না।"- কেন?

যামিনী গল্পের নায়ক কথকের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে পারবে না তার কারণ কথকের তেলেনাপােতায়। ফিরে আসার কথায় সে আকৃষ্ট হয়।


'শ্মশানের দেশ' বলতে কোন্ জায়গাকে কেন বলা হয়েছে?

'শ্মশানের দেশ' হল যামিনীর গ্রাম তেলেনাপােতা যেখানে দশটা বাড়ি খুঁজলে একটা পুরুষ পাওয়া যায় না।


"বিস্মিত হয়ে দেখবেন"- বিস্মিত হয়ে কী দেখার কথা বলা হয়েছে?

বিস্মিত হয়ে দেখা যাবে যে, ঘন অন্ধকার অরণ্য যেন সংকীর্ণ সুড়ঙ্গের মতাে পথ সামনে উন্মােচন করে দিচ্ছে।


"আপনি বিচক্ষণ হলে...”- বিচক্ষণ হলে কী বােঝা যাবে?

বিচক্ষণ হলে বােঝা যাবে যে, তেলেনাপােতার ভগ্ন অট্টালিকার দেয়ালে বিশিষ্ট ভঙ্গিতে বসে থাকা মশাগুলি অ্যানােফিলিস।


"কোনো দিকে চেয়ে জনমানব দেখতে পাবেন না।”-  কোন্ জায়গার কথা বলা হয়েছে?

শহরজীবন থেকে দুঘণ্টা বাসযাত্রা শেষে তেলেনাপােতা যাওয়ার পথে কথকেরা যেখানে নেমেছিলেন সেখানকার কথা বলা হয়েছে।


"..সপ্রশ্ন দৃষ্টিতে এ ওর মুখের দিকে চাইবেন।”—এই তাকানাের কারণ কী?

তেলেনাপােতা যাওয়ার পথে কথক ও তার দুই বন্ধু বাস থেকে নেমে তাদের নেওয়ার জন্য গােরুর গাড়ি কখন আসবে তা বুঝতেই পরস্পরের মুখের দিকে তাকায়।


"যেমন গাড়িটি তেমনি গােরুগুলি।”–গাড়িটি দেখে কথকের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া লেখাে।

কথকের মনে হয়েছিল কোনাে বামনের দেশ থেকে গােরুর গাড়ির ক্ষুদ্র সংস্করণটি যেন বেরিয়ে এসেছিল।


"সময় সেখানে স্তদ্ধ স্রোতহীন।”—কোথাকার কথা বলা হয়েছে?

গােরুর গাড়িতে করে তেলেনাপােতা যাওয়ার সময় চারপাশে কুয়াশাময় যে ঘন অন্ধকারের পটভূমি কথক দেখেছিলেন সেখানকার কথা বলা হয়েছে।


“গাড়ােয়ান অত্যন্ত নির্বিকারভাবে আপনাকে জানাবে…" -কী জানাবে?

গাড়ােয়ান নির্বিকারভাবে জানাবে যে, ক্যানেস্তারা বাজানাে হচ্ছে বাঘ তাড়ানাের জন্য।


"কম্পিত কণ্ঠে এ প্রশ্ন আপনি উত্থাপন করার আগেই...”—কোন্ প্রশ্ন?

ক্যানেস্তারা বাজিয়ে বাঘ তাড়ানাে সম্ভব কি না কথকের মনের মধ্যে উচ্চারিত এই প্রশ্নের কথা বলা হয়েছে।


"এই ধ্বংসাবশেষেরই একটি অপেক্ষাকৃত বাসযােগ্য ঘরে আপনাদের থাকার ব্যবস্থা করে নিতে হবে।"- এই থাকার জন্য গাড়ােয়ান কী করেছিল?

গাড়ােয়ান একটা ভাঙা লণ্ঠন এবং এক কলসি জল কথকদের দিয়ে গিয়েছিল।


"অপরজন পানপাত্রে নিজেকে নিমজ্জিত করে দেবেন।"- অন্য বন্ধু তখন কী করছিল?

এক বন্ধু পানপাত্রে যখন নিমজ্জিত তখন অন্য বন্ধু শতরঞ্চির উপরে নিদ্রা যায়।


“...দুর্বোধ ভাষায় আপনাকে বিদ্রুপ করবে।"- এই বিদ্রুপের কারণ কী?

মাছরাঙা পাখি পুকুরের জল থেকে শিকার ধরে বাঁশের ডগায় ফিরে গিয়ে আওয়াজ করলে তা দীর্ঘ সময় মাছ ধরতে ব্যর্থ লেখকের কাছে বিদ্রুপের মতাে শােনায়।


"... আপনার মােটেই অস্বাভাবিক ঠেকবে না।”—কীসের কথা বলা হয়েছে?

যামিনীর শান্ত মধুর অথচ গম্ভীর কণ্ঠ যা অপরিচয়ের দূরত্ব রাখে না—তার কথা বলা হয়েছে।


“খানিক আগের ঘটনাটা আপনার কাছে অবাস্তব বলে মনে হবে।”—কোন্ ঘটনার কথা বলা হয়েছে?

পুকুরঘাটে অপরিচিত মেয়ের আগমন, তার কথাবার্তা ইত্যাদিকে অবাস্তব বলে মনে হয়।


“ওঃ, সেই খেয়াল এখনাে।”—কীসের কথা বলা হয়েছে?

যামিনীর মা-এর যামিনীকে বাক্দত্ত নিরঞ্জনের সন্ধান করে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে।


“না আপত্তি কিসের!”—কোন্ আপত্তির কথা বলা হয়েছে?

কথক বন্ধু মণির সঙ্গে যামিনীর মার কাছে গেলে সে বিষয়ে আপত্তি আছে কি না জানতে চেয়েছিলেন।