'কর্তার ভূত' রচনাটির ভাষাশৈলী তথা রচনাশৈলী | 'কর্তার ভূত'-রচনাটির নামকরণের সার্থকতা | কেন কিছু দেশবাসীর ভূতশাসনতন্ত্র নিয়ে দ্বিধা জাগল | ভূতের রাজত্বে আর কিছুই না থাক...শান্তি থাকে

"ভূতের রাজত্বে আর কিছুই না থাক...শান্তি থাকে"- মন্তব্যটি ব্যাখ্যা করাে।


উদ্ধৃত অংশটি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'কর্তার ভূত' রচনা থেকে নেওয়া হয়েছে। রচনাটি "লিপিকা গ্রন্থের একটি গল্পিকা। প্রাচ্যের দেশগুলি তাদের প্রাচীন কুসংস্কারকে আঁকড়ে ধরে বেঁচে আছে। পুরােনাে অচল এইসব নিয়মনীতিকে ভূতের প্রভাব বলে মনে করা হয়েছে। ভূত অর্থাৎ অতীত যখন বর্তমানের ওপর জাঁকিয়ে বসে, তখন সেই ভূতের রাজত্বে একটা অদ্ভুত শান্তি বিরাজ করে। এ দেশবাসী চোখ কান বুজে অলস জীবন কাটায় এবং কিছু ব্যাঘাত ঘটলেই ভূতের ঘাড়ে দোষ চাপিয়েই নিশ্চিন্তে বসে থাকে। তাই তাদের মধ্যে কোনাে অশান্তি, নড়াচড়া বা পরিবর্তন হয় না। এতে দেশের উন্নতি হােক কি না হােক, দেশের সকল লােক শান্তিতে বসবাস করে। তাই বাইরের আক্রমণ তাদের স্থবির জীবনকে আন্দোলিত করে না, কারণ প্রতিবাদের ভাষা এবং বিদ্রোহ করে ছিনিয়ে নেবার মনােভাব এদের কোনােকালে জেগে ওঠে না। যাই ঘটে তাই তাদের কাছে ভবিতব্য বা ভূতের ক্রিয়াকলাপ ।

ব্যঙ্গের চাবুকে রবীন্দ্রনাথ তাঁর সমকালীন বৃহত্তর সমাজ মানসিকতার উপর এভাবেই আঘাত হেনেছেন। বাস্তব-চেতনা নিয়েই তিনি ভারতবাসীর মূল্যায়ন করেছেন। ভারতবাসী যত অত্যাচারিত হােক না কেন আদতে তারা শান্তিপ্রিয় মানুষ।



কেন কিছু দেশবাসীর ভূতশাসনতন্ত্র নিয়ে দ্বিধা জাগল?


'কর্তার ভূত' রচনায় রবীন্দ্রনাথ দেখিয়েছেন যে আমাদের দেশ কীভাবে ভূতের দ্বারা পরিচালিত। এখানে রাজার রাজতন্ত্র, জনগণের গণতন্ত্র, প্রজার প্রজাতন্ত্র কোনােটাই গড়ে ওঠেনি—কারণ মানুষ অতীতকে এতটাই ভালােবেসে ফেলেছে যে অতীতের ভূতকেও জোর করে আঁকড়ে ধরে আছে। প্রাচীন নিয়মকানুন বা কুসংস্কারের বশবর্তী হয়ে এরা দিব্যি নিশ্চিন্তে দিন কাটাচ্ছে। এই ভূতশাসনতন্ত্রে তারা সব কিছু দেখেশুনেও না দেখার ভান করে চোখ বুজে ঘুমিয়ে রয়েছে। কোনােরকম পরিবর্তন এদেশকে স্পর্শ করতে পারে না। তাই এদেশের উন্নতিও ঘটে না। এই ভূতশাসনতন্ত্র নিয়ে কারাের মনে কোনােরকম দ্বিধা জেগে উঠত না। এমনভাবেই তাদের দিন চলত যাতে চিরকালই তারা গর্ব করতে পারত যে এদের ভবিষ্যৎটা। পােষা ভেড়ার মতাে ভূতের খোঁটায় বাধা। কিন্তু পৃথিবীর অন্যসব দেশগুলােকে এদেশের মতাে ভূতে পায়নি। তারা তাদের পুরােনাে। বস্তাপচা নিয়মকানুনগুলােকে বহুদিন আগে ঝেড়ে ফেলে আধুনিকতাকে সসম্মানে গ্রহণ করেছে। তাই এরা অগ্রগতির চরম শীর্ষে অবস্থান করছে, যা দেখে সকলে ঈর্ষান্বিত না হয়ে পারছে। না। তাই আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে টিকে থাকতে গেলে এদেশের নিয়মকানুনের পরিবর্তন প্রয়ােজন। ভূতকে ঘাড় থেকে নামাতে না পারলে আধুনিক বর্তমান ও ভবিষ্যৎ এদেশের পদানত হবে না। এ কথাই লেখক বলতে চেয়েছেন।



'কর্তার ভূত'-রচনাটির নামকরণের সার্থকতা বিচার করাে।


নামকরণ রচনাকে কেবল চিহ্নিতই করে না, এটি পাঠকের কাছে রচনাটিতে প্রবেশের চাবিকাঠিও।


রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কর্তার ভূত' ছােটোগল্পে আমরা দেখি যে, বুড়াে কর্তার মৃত্যুকালে দেশবাসী অভিভাবকহীন হওয়ার ভয়ে ভীত হলে ভগবানের দয়ায় অন্ন বস্ত্র বাসস্থানের সুরাহা না হলেও, তারা শান্তিতে রইল। দু-একজন মানুষ ভূতশাসনতন্ত্র নিয়ে প্রশ্ন করলে তাদের ভাগ্যে জুটল ভূতের কানমলা। বাকিরা গর্বের সঙ্গেই দিন কাটাতে লাগল। অবশ্য, ভুতুড়ে জেলখানার দেয়ালটাই যেহেতু চোখে দেখা যায় না, সেহেতু সেই জেল থেকে বেরােনাের উপায়ও কারও জানা নেই। আর, এই জেলের ঘানি ঘােরালে পেষণকারীর তেজ বেরিয়ে যায় বলে সে ঠান্ডা হয়ে যায়। শিরােমণি-চুড়ামণির দল জানায়, “বেঁহুশ যারা তারাই পবিত্র, হুঁশিয়ার যারা তারাই অশুচি।" হুঁশিয়ার দেশবাসীর উদ্দেশ্যে ভূতের নায়েব শাসানি দেয়—“চুপ। এখনাে ঘানি অচল হয় নি।" দেশের মানুষ এই অবস্থা থেকে নিষ্কৃতি পেতে চাইলেও কর্তার নিয়ন্ত্রণমুক্ত হতে তারা ভয় পায়। কর্তা বলেন, সেইখানেই তার ভূত। এইভাবে লেখক এ গল্পে প্রাচীন সভ্যতা-রূপী কর্তার ধর্মতন্ত্র রূপী ভূত-এ আষ্টেপৃষ্ঠে আচ্ছন্ন আমাদের সমাজব্যবস্থার সমালােচনা করেছেন। তাই, কর্তার ভূত নামকরণটি নিঃসন্দেহে শিল্পসম্মত, ব্যঞ্জনাময় এবং সার্থক।



রবীন্দ্রনাথের 'কর্তার ভূত' রচনাটির ভাষাশৈলী তথা রচনাশৈলী পর্যালােচনা করাে।


রবীন্দ্রনাথের 'লিপিকা' গ্রন্থের অন্তর্গত কর্তার ভূত ছােটোগল্পটির বাইরের আখ্যানের আড়ালে লুকিয়ে আছে আর একটি সমান্তরাল অন্তর্নিহিত আখ্যান, যেটিই মুখ্য। রূপকের আড়ালে এ গল্পের মধ্য দিয়ে রবীন্দ্রনাথ দেখিয়েছেন যে, আধুনিককালেও প্রাচীন সভ্যতার ধর্মতন্ত্রে আচ্ছন্ন হয়ে দেশবাসী কেমন যুক্তিবুদ্ধি-বিচার-বিবেচনাহীন হয়ে দিন কাটিয়ে চলেছে। সূক্ষ্ম ব্যঙ্গের সহায়তায় এবং রূপকথা ও লােকসাহিত্যের বিভিন্ন অনুষঙ্গকে ব্যবহার করে এই রূপকার্থটি লেখক এ গল্পে প্রকাশ করেছেন। এ গল্পে তাই ভূত-প্রেত-দত্যি-দানাের প্রসঙ্গ এসেছে, এসেছে ভগবানের প্রসঙ্গও। খােকা ঘুমােলাে, পাড়া জুড়ােলাে-এই অতিপরিচিত ছেলেভুলানাে ছড়াটির প্রথম দুই পঙ্ক্তির টুকরাে টুকরাে অংশকে এ গল্পে ব্যবহার করে লেখক যেমন দেশবাসীর নিদ্রাচ্ছন্ন অবস্থাকে তুলে ধরেছেন, তেমনি উপস্থাপিত করেছেন তাদের পশ্চাৎমুখিতাকে। আর তা করতে গিয়ে লেখক ব্যবহার করেছেন গদ্যকাব্য রচনার উপযােগী সহজ-সরল, ভাবপ্রবণ ভাষা। সুতরাং শুধু বিষয়গত দিক দিয়েই নয়, রচনাশৈলীর দিক দিয়েও 'কর্তার ভূত' ছোট গল্প একটি প্রতিনিধিত্থানীয় রচনা।



কর্তার ভূত ছােটোগল্পে ভূতের কানমলা সম্বন্ধে কী বলা হয়েছে? এই গল্পে ওঝা চরিত্রটি সৃষ্টির সার্থকতা বিচার করাে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'কর্তার ভূত ছােটোগল্প অবলম্বনে ভূতগ্রস্ত দেশবাসী এবং বিদেশিদের ঘােরানাে ঘানির তুলনামূলক আলােচনা করাে।

কর্তার ভূত ছােটোগল্পের রূপকার্থটি সংক্ষেপে লেখাে।

কর্তার ভূত’ রচনাটিকে কী জাতীয় রচনা বলে তুমি মনে করাে?


'কর্তার ভূত' অবলম্বনে ‘স্বভাবদোষে যারা নিজে ভাবতে যায়’ তাদের চরিত্র বিশ্লেষণ করাে।

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের লেখা 'কর্তার ভূত' রচনায় দেশসুদ্ধ সবাই বলতে কোন্ ধরনের মানুষের কথা বলা হয়েছে?

কর্তার ভূত ছোট গল্পের বিষয়বস্তু বিশ্লেষণ করাে।

কর্তার ভূত ছোট গল্প অবলম্বনে ভুতুড়ে জেলখানার বর্ণনা দাও। কাদের সম্বন্ধে এবং কেন লেখক বলেছেন যে, তারা ভয়ংকর সজাগ আছে?


“দেশের লােক ভারি নিশ্চিন্ত হল।”—কীভাবে দেশের লােক ভারী নিশ্চিন্ত হল?

“একেই বলে অদৃষ্টের চালে চলা।"- 'কর্তার ভূত' রচনা অবলম্বন করে এই 'অদৃষ্টের চালে চলা’র তাৎপর্য বিশ্লেষণ করাে।

"সেই জেলখানার দেয়াল চোখে দেখা যায় না।- সেই জেলখানার বিস্তৃত বিবরণ দাও। সেই জেলখানার কয়েদিদের ঘানি ঘােরানাের কথা আলােচনা করাে।

“শুনে ঘুমপাড়ানি মাসিপিসি আর মাসতুতাে-পিসতুততার দল কানে হাত দিয়ে বলে,—কোন্ কথার উত্তরে কী বলে তারা?


"কেননা ভবিষ্যৎকে মানলেই তার জন্যে যত ভাবনা, ভূতকে মানলে কোনাে ভাবনাই নেই;"—প্রসঙ্গ উল্লেখ করে উদ্ধৃতিটির তাৎপর্য বিশ্লেষণ করাে।

"অথচ তার মাথা নেই, সুতরাং কারও জন্য মাথাব্যথাও নেই।"— কার সম্বন্ধে, কেন লেখক এ কথা বলেছেন?

"শুনে ভূতগ্রস্ত দেশ আপন আদিম আভিজাত্য অনুভব করে।"- আদিম আভিজাত্য' অনুভব করার কারণ কী?

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের 'কর্তার ভূত' রচনায় 'দেশে যত শিরােমণি-চূড়ামণি'-র বক্তব্য কী ছিল?


“এখন কথাটা দাঁড়িয়েছে, 'খাজনা দেব কিসে।" কারা, কাদের কাছে খাজনা চেয়েছে? খাজনা দিতে না পারার কারণ কী?

“দেশের মধ্যে দুটো-একটা মানুষ" -এর সঙ্গে বুড়াে কর্তার কথােপকথন 'কর্তার ভূত' অবলম্বনে লেখো এবং রূপকার্থ আলােচনা করাে।

'ওরে অবােধ, আমার ধরাও নেই ছাড়াও নেই, তােরা ছাড়লেই আমার ছাড়া'—এখানে কে কাদের অবােধ বলেছেন? উক্তিটির তাৎপর্য আলােচনা করাে।

"কর্তা বলেন, সেইখানেই তাে ভূত।"- কোন প্রসঙ্গে এবং কেন কর্তা এ কথা বলেছেন?


'কর্তার ভূত’ রচনায় ওঝা প্রসঙ্গটির তাৎপর্যটি লেখাে।

“সে ভবিষ্যৎ ভ্যাও করে না ম্যাও করে না" -সে ভবিষ্যৎ ভ্যা বা ম্যা করে না কেন?

"কেননা ওঝাকেই আগেভাগে ভূতে পেয়ে বসেছে"- ওঝাকে ভূতে পেলে কী ক্ষতি হওয়ার কথা লেখক বলেছেন?

'কর্তার ভূত'- কি নিছক ভূতের গল্প, নাকি রাজনৈতিক রূপক কাহিনি? ব্যাখ্যাসহ লেখাে।


'তারা ভয়ংকর সজাগ আছে।' -কাদের কথা বলা হয়েছে? তাদের এমন ‘ভয়ংকর সজাগ থাকার কারণ কী?

"কেবল অতি সামান্য একটা কারণে একটু মুশকিল বাধল।”—কারণটি পর্যালােচনা করাে।

কর্তার ভূত গল্পে যে সামাজিক সত্যের দিকে লেখক নির্দেশ করেছেন তা নিজের ভাষায় লেখাে।