রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা দাও। রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে কেন 'প্রগতিশীল বিজ্ঞান' হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে?

রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা


রাষ্ট্রবিজ্ঞানের একটি সুনির্দিষ্ট সংজ্ঞা দেওয়া বেশ কঠিন। রাষ্ট্রবিজ্ঞানীরা ভিন্ন ভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সংজ্ঞা নির্ধারণ করেছেন। যেমন-[1] ঐতিহ্যবাহী বা সাবেকি সংজ্ঞা, [2] আধুনিক সংজ্ঞা ও [3] মার্কসবাদী সংজ্ঞা।


[1] রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ঐতিহ্যবাহী বা সাবেকি সংজ্ঞা


  • রাষ্ট্রকেন্দ্রিক সংজ্ঞা: রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ঐতিহ্যবাহী বা সাবেকি সংজ্ঞা মূলত রাষ্ট্রকেন্দ্রিক। রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলির গঠন ও কার্যাবলি, রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠানগুলির সঙ্গে রাষ্ট্রের পারস্পরিক সম্পর্ক ইত্যাদি বিষয় ঐতিহ্যবাহী সংজ্ঞায় প্রাধান্য পেয়েছে। সেই কারণে ঐতিহ্যবাহী সংজ্ঞাকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রতিষ্ঠানকেন্দ্রিক বা রাষ্ট্রকেন্দ্রিক সংজ্ঞা বলে অভিহিত করা হয়। গেটেলের অভিমত অনুযায়ী, রাষ্ট্রের অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ নিয়ে আলােচনা হল রাষ্ট্রবিজ্ঞান ব্লুন্টসলি বলেন, রাষ্ট্রবিজ্ঞান হল রাষ্ট্রের বিজ্ঞান। গার্নারের বক্তব্য হল, রাষ্ট্রকে নিয়েই রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শুরু ও সমাপ্তি।


  • সরকারকেন্দ্রিক সংজ্ঞা: সিলি, ক্যাটলিন প্রমুখ রাষ্ট্রবিজ্ঞানী রাষ্ট্রবিজ্ঞান বলতে এমন কিছুকে বুঝিয়েছেন, যা সরকার সম্পর্কিত বিষয়ে অনুসন্ধান চালায়।


  • রাষ্ট্র ও সরকারকেন্দ্রিক সংজ্ঞা: অধ্যাপক গিলক্রিস্টের মতে, রাষ্ট্রবিজ্ঞান রাষ্ট্র ও সরকার সম্পর্কে আলােচনা করে। ফরাসি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী পল জানে বলেছেন, সমাজবিজ্ঞানের যে শাখা রাষ্ট্রের ভিত্তি ও সরকার নিয়ে আলােচনা করে, তাকে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বলে।


[2] রাষ্ট্রবিজ্ঞানের আধুনিক সংজ্ঞা: আধুনিক রাষ্ট্রবিজ্ঞানীরা বিংশ শতাব্দীর গােড়ার দিকে রাষ্ট্রকেন্দ্রিক আলােচনার ধারাকে নাকচ করে দিয়ে ব্যক্তি ও গােষ্ঠীর আচরণকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছেন। তাঁদের অভিমত হল, রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে শুধু রাষ্ট্র ও তার প্রতিষ্ঠান সম্পর্কিত আলােচনায় সীমায়িত করে রাখলে রাজনৈতিক জীবনের পূর্ণাঙ্গ পরিচয় পাওয়া যাবে না। তাদের মতে, রাজনৈতিক দিককে সমাজের অন্যান্য বিষয় থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেখলে রাষ্ট্রবিজ্ঞান অবাস্তব হয়ে পড়বে। আচরণবাদী রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ডেভিড ইস্টনের বক্তব্য অনুসারে, মূল্যের কর্তৃত্বমূলক বণ্টনের আলােচনা হল রাষ্ট্রবিজ্ঞান। রবার্ট ডাল ও লাসওয়েল রাজনৈতিক ক্ষমতাকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বিষয়বস্তু হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চেয়েছেন। লাসওয়েলের মতে, রাষ্ট্রবিজ্ঞান হল সমাজের প্রভাব ও প্রভাবশালীদের সম্পর্কে আলােচনা ও বিশ্লেষণ।| অ্যালান বলের মতে, রাষ্ট্রবিজ্ঞান হল এমন একটি বিষয়, যা সমাজভুক্ত ব্যক্তিদের বিরােধ ও বিরােধ মীমাংসা সম্পর্কে আলােচনা করে।


[3] রাষ্ট্রবিজ্ঞানের মার্কসবাদী সংজ্ঞা: মার্কসবাদী রাষ্ট্রবিজ্ঞানীদের মতে, সমাজের শ্রেণিসম্পর্ক ও শ্রেণিসংগ্রাম সম্পর্কিত বিচারবিশ্লেষণ হল রাষ্ট্রবিজ্ঞান। মার্কসীয় তত্ত্বে রাষ্ট্রের উৎপত্তি ও প্রকৃতিকে সম্পূর্ণ ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে ব্যাখ্যা করা হয়েছে। মার্কসীয় দৃষ্টিভঙ্গি অনুসারে, রাষ্ট্রবিজ্ঞানের আলােচনাকে সমাজের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা থেকে বিচ্ছিন্ন করে আলোচনা করলে তা অসম্পূর্ণ বলে পরিগণিত হবে। অর্থনীতি-নিরপেক্ষ রাজনীতির আলােচনা বিজ্ঞানসম্মত নয় বলে মার্কসবাদে দাবি করা হয়।


পরিশেষে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের একটি গ্রহণযােগ্য সংজ্ঞা নির্দেশ করতে গিয়ে বলা যায়, রাষ্ট্রবিজ্ঞান হল সমাজবিজ্ঞানের এমন এক শাখা, যা বিজ্ঞানসম্মত পর্যালােচনার মাধ্যমে রাষ্ট্র সম্পর্কিত তত্ত্ব, শাসনপদ্ধতি, রাজনৈতিক ব্যবস্থা, রাজনৈতিক ক্ষমতা ও আচরণ, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক, আন্তর্জাতিক আইন ও সংগঠন ইত্যাদি সম্পর্কে বিচারবিশ্লেষণ করে।


রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে প্রগতিশীল বিজ্ঞান হিসেবে অভিহিত করার কারণ


ব্রাইসের মতে, রাষ্ট্রবিজ্ঞান অসম্পূর্ণ বিজ্ঞান হলেও পরিবর্তিত জগতের প্রগতিশীল মানুষের রাজনৈতিক আচার-আচরণকে কেন্দ্র করে এর পরিধি বেড়ে চলেছে এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে এর বিশ্লেষণও অনেক সহজ হয়েছে। তাই লর্ড ব্রাইস রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে প্রগতিশীল বিজ্ঞান বলে অভিহিত করেছেন।


১৯৪৮ সালে আন্তর্জাতিক রাষ্ট্রবিজ্ঞান সম্মেলনে গৃহীত প্রস্তাব অনুযায়ী রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বিষয়গুলি কী? আলোচ্য বিষয়রূপে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের বিবর্তনের সংক্ষিপ্ত পরিচয় দাও।


আচরণবাদের বৈশিষ্ট্য ব্যাখ্যা করাে।


রাজনীতির অর্থ নিরূপণ করাে | রাজনীতি বলতে কী বােঝায়?


রাষ্ট্রবিজ্ঞানের রাষ্ট্রকেন্দ্রিক ও রাষ্ট্রনিরপেক্ষ সংজ্ঞাগুলি আলােচনা করাে।


রাষ্ট্রবিজ্ঞান কি বিজ্ঞান? রাষ্ট্রবিজ্ঞানকে বিজ্ঞান বলার পক্ষে ও বিপক্ষে যুক্তি | রাষ্ট্রবিজ্ঞান কি বিজ্ঞান পদবাচ্য? আলােচনা করাে।


রাষ্ট্রবিজ্ঞানের আলােচনা ক্ষেত্রের পরিধি বিশ্লেষণ করাে | রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রকৃতি ও বিষয়বস্তুর পরিধি সম্পর্কে আলােচনা করাে।


রাষ্ট্রের সংজ্ঞা দাও।রাষ্ট্রের প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি ব্যাখ্যা করাে।