হরপ্পা সভ্যতার অধিবাসীদের অর্থনৈতিক জীবনের পরিচয় দাও।

সূচনা: বিশ্বের প্রাচীন সভ্যতাগুলির মধ্যে অন্যতম হল হরপ্পা সভ্যতা। সিন্ধু ও তার উপনদী ইরাবতীর তীরে গড়ে উঠেছিল এই সুপ্রাচীন সভ্যতাটি। হরপ্পা সভ্যতার অধিবাসীরা মূলত কৃষি ও পশুপালন ভিত্তিক অর্থনীতির ওপর নির্ভরশীল ছিল। তবে বিভিন্ন ধরনের শিল্প ও বাণিজ্যও এই সভ্যতার অর্থনীতিকে প্রভাবিত করেছিল।


হরপ্পাবাসীর অর্থনৈতিক জীবন


[1] পশুপালন: হরপ্লাবাসীদের অর্থনীতিতে পশুপালনের বিশেষ ভূমিকা ছিল। হরপ্লাবাসীদের গৃহপালিত পশু ছিল গােরু মহিষ, ভেড়া, ছাগল, শূকর ও উট। প্রয়ােজনে তারা গৃহপালিত পশুদের খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করত। এ ছাড়াও তারা গােরু ও মহিষকে চাষে লাঙল টানার কাজে ব্যবহার করত।


[2] কৃষি


  • কৃষিকাজের সূত্রপাত : সিন্ধুর উভয় তীরে উর্বর সমভূমিতে প্রথমে গম আর যব চাষ শুরু হয়। পাশাপাশি সিল্ধুবাসী এসময় অল্পবিস্তর ধান চাষও শুরু করে।


  • কৃষিজাত ফসল : হরপ্লাবাসীদের প্রধান প্রধান কৃষিজাত ফসল ছিল গম, যব, তিল, মটর, রাই, বাদাম প্রভৃতি। অন্যান্য কৃষিজাত ফসলের মধ্যে ছিল বাজরা, ধান, নানা ধরনের কলাই এবং কার্পাস।


[3] শিল্প: সিন্ধু সভ্যতায় ধাতুশিল্প, মৃৎশিল্প, অলংকারশিল্প ও বস্ত্রবয়নশিল্পের প্রচলন ছিল।


  • ধাতুশিল্প: সিন্ধু অঞ্চলে লােহার কোনাে চিহ্ন না পাওয়া গেলেও তামা ও ব্রোঞ্জের বর্শা, কুঠার, বড়শি, করাত, ছুঁচ, দাঁড়িপাল্লা প্রভৃতি নিদর্শন পাওয়া গেছে। ধাতুশিল্পের মধ্যে সােনা ও বুলুপাের অলংকার নির্মাণশিল্পের প্রচলন ছিল।


  • মৃৎশিল্প: উজ্জয়িনী শহরের অদূরে (২৫ কিমি পূর্বে) কায়থা অঞ্চলে তিন ধরনের প্রাচীন মাটির পাত্র মিলেছে। এগুলি হল বেগুনি রঙের নকশা কাটা বাদামি পাত্র, হালকা লাল নকশা কাটা পীতাভ পাত্র এবং সুদৃশ্য আঁচড় কাটা লাল পাত্র। মৃৎশিল্পীরা পলিমাটি, বালি ও চুনের গুঁড়াে মিশিয়ে কলশি, জালা, থালা, পেয়ালা, ডেকচি, বয়াম প্রভৃতি নিত্যব্যবহার্য দ্রব্যাদি ও নানাপ্রকার খেলনা তৈরি করত।


  • বস্ত্রবয়নশিল্প : সিন্ধু উপত্যকার বসতি এলাকা থেকে পােড়ামাটি ও বিভিন্ন ধরনের বস্তুর মিশ্রণ দিয়ে তৈরি তকলি মিলছে। এই যন্ত্রের সাহায্যে হাত দিয়ে সুতাে কাটা হত বলে মনে করা হয়। মহেনজোদারােয় প্রাপ্ত রঙিন কাপড়ের টুকরােটি এখনও পর্যন্ত বিশ্বের প্রাচীনতম সুতি কাপড়ের নিদর্শন। সিন্ধু সভ্যতায় যে পুরােহিত রাজার পাথরের মূর্তিটি পাওয়া গেছে, তার পােশাকে ছুঁচ দিয়ে করা যে অলংকরণ বা নকশা দেখা যায়, তা উন্নত সূচিশিল্পের পরিচায়ক।


[4] বাণিজ্য


  • বাণিজ্যের ধরন: হরপ্পা সভ্যতায় তিন ধরনের বাণিজ্যের প্রচলন ছিল। যথা-স্থানীয় বাণিজ্য, অভ্যন্তরীণ দূরপাল্লার বাণিজ্য এবং আন্তর্জাতিক বাণিজ্য।


    • স্থানীয় বাণিজ্য: স্থানীয় বাণিজ্য চলত নিকটবর্তী একটি অঞ্চলের সঙ্গে অপর অঞ্চলের। পশুতে টানা গাড়ি, ভারবাহী বলদ ও জলযানের সাহায্যে পণ্যসামগ্রীর লেনদেন চলত।


    • অভ্যন্তরীণ দূরপাল্লার বাণিজ্য: মূলত সিন্ধু নদ ধরেই দেশের মধ্যেকার দূরবর্তী অঞ্চলগুলিতে বাণিজ্য চলত। বণিকদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে লােথাল, কালিবঙ্গান, ধােলাভিরা ছাড়াও সুদূর হিমালয় পার্বত্য অঞ্চলের সঙ্গেও বাণিজ্যিক যােগাযােগ গড়ে উঠেছিল।


    • আন্তর্জাতিক বাণিজ্য: সিন্ধু সভ্যতার সঙ্গে বেলুচিস্তান, আফগানিস্তান, ইরান, মিশর, মেসােপটেমিয়া প্রভৃতি বাইরের দেশগুলির সঙ্গে বাণিজ্য চলত।


  • আমদানি-রপ্তানি পণ্য: বেলুচিস্তান, আফগানিস্তান, ইরান থেকে সােনা, রুপা, সিসা, টিন ও দামি পাথর আমদানি করা হত। আর সিন্ধু উপত্যকা অঞ্চল থেকে ওই সমস্ত দেশে রপ্তানি করা হত তুলাে, সুতি বস্ত্র, তামা ও হাতির দাঁতের তৈরি নানা ধরনের জিনিসপত্র। সিন্ধু সভ্যতার লােথাল বন্দরটি ছিল আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের প্রধান কেন্দ্র।


আদিম আফ্রিকার ভূপ্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যের উল্লেখ করাে।


কী কী সুবিধার জন্য প্রাচীন কালে নদীকেন্দ্রিক সভ্যতাগুলি গড়ে উঠেছিল? নদীকেন্দ্রিক সভ্যতার প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি আলােচনা করাে।


মেহেরগড় সভ্যতার পরিচয় দাও।


মেহেরগড়বাসীর জীবিকা কী ছিল? মেহেরগড় সভ্যতার ধ্বংসের কারণগুলি কী ছিল?


হরপ্পা সভ্যতার নগর পরিকল্পনার বিবরণ দাও।


প্রবন্ধ লেখাে : হরপ্পা সভ্যতা


হরপ্পা সভ্যতার অধিবাসীদের সামাজিক জীবনের পরিচয় দাও।হরপ্পা সভ্যতার অধিবাসীদের সামাজিক জীবনের পরিচয় দাও।